newsup

জানুয়ারি ২, ২০২২

ফাইভ জি’র যুগে বাংলাদেশ 

ফাইভ জি’র যুগে বাংলাদেশ 

নিউজ ডেস্কঃ প্রযুক্তি খাতে সফলতার মধ্য দিয়ে শেষ হচ্ছে আরেকটি বছর। নানা করণে প্রযুক্তি সেক্টরে বিদায়ি বছরটি আলোচিত ছিল। ২০০৮ সালের ১২ ডিসেম্বর আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা নির্বাচনি ইশতেহারে ডিজিটাল বাংলাদেশের রূপরেখা ঘোষণা করেছিলেন, সেটা শেষ হলো বিদায়ি বছরে। এখন ২০৪১ সালের ভিশন নিয়ে কাজ চলছে। বিদায়ি বছরে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ছিল ফাইভজি চালু। গত ১২ ডিসেম্বর ফাইভজির যুগে প্রবেশ করে বাংলাদেশ। নতুন একটি স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের উদ্যোগও নেওয়া হয়েছে বিদায়ি বছরে।

টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, প্রযুক্তিতে যে বাংলাদেশ বহুদূর এগিয়েছে সেটা আমরা করোনা মহামারির মধ্যে বুঝতে পেরেছি। মোবাইল অপারেটরদের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগের পরও তারা কিন্তু করোনার মধ্যে মানুষকে প্রযুক্তিগত সহায়তা দিয়ে গেছে। এখন সেবাগুলো নির্বিঘ্ন করতে আমাদের কাজ করে যেতে হবে।

২০০৯ সাল থেকেই প্রধানমন্ত্রীর আইসিটি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের তত্ত্বাবধানে ডিজিটাল বাংলাদেশে দিনবদলের যাত্রা শুরু হয়। প্রতি বছরই কিছু কিছু এগিয়েছে। তবে তিনি ঘোষণা করেছিলেন, ভিশন ২০২১-এর মধ্যেই দেশে ফাইভজি চালু হবে। বছরের শেষে এসে তিনি সেই প্রতিশ্রুতিও রেখেছেন। টেলিটকের মাধ্যমে পরীক্ষামূলকভাবে এই কার্যক্রম শুরু হলেও নতুন বছরে পুরোদমে দেশে ফাইভজি চালু প্রস্ত্ততি নিচ্ছে সরকার। এর মধ্যে ফাইভজির স্পেকট্রাম বরাদ্দ থেকে শুরু করে সবকিছু নিয়েই কাজ চলছে। সামনের দিনে এই অর্জন ধরে রেখে আরো কিছু নতুন পরিকল্পনা নিয়েছে সরকার।

তবে বিদায়ি বছরে প্রযুক্তি নিয়ে মানুষের খারাপ অভিজ্ঞতাও হয়েছে। কলড্রপ, ইন্টারনেটে কাঙ্ক্ষিত গতি না পাওয়াসহ নানা সংকটে দিন পার হয়েছে প্রযুক্তি ব্যবহারকারী মানুষের। এমনকি বৈশ্বিক সব রিপোর্টেও বাংলাদেশের ইন্টারনেটের গতি নিয়ে নেতিবাচক ফল এসেছে। একেবারে তলানিতে অবস্হান করছে বাংলাদেশ।

ফলে নতুন বছরে এই চ্যালেঞ্জগুলো উৎরাতে হবে। শুধু এই চ্যালেঞ্জই নয়, সবাইবার অপরাধ এখন আষ্টেপৃষ্ঠে ঘিরে ফেলেছে। এটাও নতুন বছরের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ হবে। দেশ সরকারি-বেসরকারি সব সেবা এখন অনলাইনে। আর্থিক খাতকে সুরক্ষিত রাখতে মনোযোগ দিতে হবে সাইবার নিরাপত্তায়। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সাইবার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে না পারলে বড় ধরনের চ্যালেঞ্জে পড়তে হতে পারে আমাদের।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ বলেন, ‘আমরা মানুষকে যে ভিশন দেখিয়েছিলাম, সেটা আজ বাস্তব। সামনের দিনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় আমরা সর্বোচ্চ প্রস্ত্ততি নিয়েছি। আইসিটি বিভাগের ডিজিটাল নিরাপত্তা এজেন্সিকে ঢেলে সাজানো হচ্ছে। সাইবার হামলা ঠেকাতে তাদের প্রস্তুত করা হচ্ছে।’

দেশ যত ডিজিটাল হচ্ছে, সাইবার হামলার শঙ্কাও বাড়ছে। গত অক্টোবরে বাংলাদেশ সরকারের গুরুত্বপূর্ণ সংস্হা ও জাতীয় প্রতিষ্ঠানকে লক্ষ্য করে একাধিকবার সাইবার গুপ্তচরবৃত্তির চেষ্টা চালানো হয়েছে বলে সরকারি একটি সংস্থার পর্যবেক্ষণে উঠে এসেছে। টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, ‘আমরা তো এখন সবকিছুই ডিজিটালাইজেশন করে ফেলেছি। ফলে আমাদের আর্থিক প্রতিষ্ঠানে ঝুঁকি যে আছে, সেটা অস্বীকার করার উপায় নেই। যে কেউ এখন এটা হ্যাক করতে পারলে আর্থিক প্রতিষ্ঠানে উলট-পালট করে ফেলতে পারে। এমনকি টাকাও চুরি করে নিয়ে যেতে পারে। আসলে সাম্প্রতিক সময়ে সামাজিক মাধ্যম নিয়ে আমরা অনেক বেশি ব্যস্ত সময় পার করছি, আসলে সাইবার নিরাপত্তার বিষয়েও অনেক বেশি মনোযোগ দেওয়া দরকার। সরকার এখন সেদিকে নজর দিচ্ছে। নতুন বছরে সেটা হবে।’

বাংলাদেশ ব্যাংকের টাকা চুরি যাওয়ার ঘটনার পর বাংলাদেশে সাইবার নিরাপত্তা নিয়ে নড়াচড়া শুরু হয়। অনেক প্রতিষ্ঠানই নিজেদের নিরাপত্তা জোরদার করে। আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর সাইবার নিরাপত্তা এখন পর্যন্ত কতটা জোরদার করা গেছে? জানতে চাইলে প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ সুমন আহমেদ সাবির বলেন, ‘সিকিউরিটি সচেতনতা আগের চেয়ে অনেক বেড়েছে এতে কোনো সন্দেহ নেই। অনেক প্রতিষ্ঠান আগের চেয়ে অনেক বেশি প্রস্ত্ততি নেওয়ার চেষ্টা করছে। বিশেষ করে আমাদের আর্থিক প্রতিষ্ঠান, সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোতে যে পরিমাণ প্রস্ত্ততি নেওয়ার প্রয়োজন ছিল সেখানে একটা বড় ধরনের ঘাটতি আছে। এটা নিয়ে কাজ করতে হবে।’

এখন আর শুধু বেসরকারি সেবা নয়, সরকারি সব সেবাও মিলছে অনলাইনে। কেনাকাটা থেকে শুরু করে সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগ পোহাতে হতো যে কাজে সেই জমির পর্চাও মিলছে অনলাইনে। জন্ম-মৃত্য নিবন্ধন, ই-নামজারি, পাসপোর্টের আবেদন থেকে শুরু করে সবকিছুই মিলছে সারা দেশে ছড়িয়ে থাকা ডিজিটাল সেন্টারগুলোতে। ঢাকার বাইরে তিন হাজার ৮০০ ইউনিয়নে ফাইবার অপটিক্যাল ক্যাবল দিয়ে ইন্টারনেট সংযোগ দেওয়া হয়েছে। সেখানে তৈরি করা হয়েছে ডিজিটাল সেন্টার। সেখানে ২৭০টিও বেশি সেবা পাওয়া যাচ্ছে। দেশে এখন ১০ কোটি মানুষ মোবাইল ফোনে আর্থিক লেনদেন করছে। দেশের এখন এমএফএসে একাউন্ট প্রায় ১২ কোটি। এর মধ্যে সক্রিয় একাউন্টের সংখ্যা ৫ কোটির বেশি।


সর্বশেষ সংবাদ

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে “ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির” প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে “ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির” প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন

নিউজ ডেস্কঃ একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির ৩০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন করেছে সংগঠনটির নিউইয়র্ক চ্যাপ্টার। ১৯৯২ সালের ১৯ জানুয়ারি জাহানারা ইমামের নেতৃত্বে

বিশ্বজুড়ে করোনায় আক্রান্ত ৩৫ কোটি

বিশ্বজুড়ে করোনায় আক্রান্ত ৩৫ কোটি

নিউজ ডেস্কঃ গত ২৪ ঘণ্টায় সারা বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৬ হাজারের বেশি মানুষ। একই সময়ে ভাইরাসটিতে নতুন

করোনা থেকে মুক্ত হওয়ার পরও মস্তিষ্কে রেশ থাকে : গবেষণা রিপোর্ট

করোনা থেকে মুক্ত হওয়ার পরও মস্তিষ্কে রেশ থাকে : গবেষণা রিপোর্ট

নিউজ ডেস্কঃ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর সুস্থ। করোনা পরীক্ষার ফলাফল নেগেটিভ। পরে শরীরে আর কোনো উপসর্গও দেখা যায়নি। তার মানে করোনা

জাতিসংঘে ভোটাধিকার ফিরে পাচ্ছে ইরান

জাতিসংঘে ভোটাধিকার ফিরে পাচ্ছে ইরান

নিউজ ডেস্কঃ জাতিসংঘে বকেয়া পরিশোধ করার পর ভোটাধিকার ফেরত পাচ্ছে বলে জানিয়েছেন জাতিসংঘে নিযুক্ত ইরানের স্থায়ী প্রতিনিধি মাজিদ তাখতে রাভানচি। জাতিসংঘে

ইউক্রেনকে কতটা সহায়তা করতে পারবে পশ্চিমা বিশ্ব

ইউক্রেনকে কতটা সহায়তা করতে পারবে পশ্চিমা বিশ্ব

নিউজ ডেস্কঃ পূর্ব ইউরোপের একটি রাষ্ট্র ইউক্রেন। রাশিয়ার পরে এটি ইউরোপের দ্বিতীয় বৃহত্তম রাষ্ট্র। ইউক্রেনের পশ্চিমে পোল্যান্ড, স্লোভাকিয়া ও হাঙ্গেরি, দক্ষিণ-পশ্চিমে

ফ্রান্সে হিজাব নিষিদ্ধের বিরুদ্ধে নারী আন্দোলনকারীদের প্রতিবাদ

ফ্রান্সে হিজাব নিষিদ্ধের বিরুদ্ধে নারী আন্দোলনকারীদের প্রতিবাদ

নিউজ ডেস্কঃ সব ধরনের খেলাধুলায় নারীর মাথায় হিজাব পরিধান নিষিদ্ধ করে ফ্রান্সের সিনেটে যে আইন পাস হয়েছে তার বিরোধিতা করেছে নারী

সিলেট বিভাগে শনাক্তের হার বেড়ে ৩৬.১৩ শতাংশ

সিলেট বিভাগে শনাক্তের হার বেড়ে ৩৬.১৩ শতাংশ

নিউজ ডেস্কঃ সিলেট বিভাগে করোনা শনাক্তের হার প্রতিদিন বাড়ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের হার ৩৬ শতাংশ ছাড়িয়ে গেছে। একদিনে শনাক্তের

উনসত্তরের ঐতিহাসিক গণ-অভ্যুত্থান দিবস আজ

উনসত্তরের ঐতিহাসিক গণ-অভ্যুত্থান দিবস আজ

নিউজ ডেস্কঃ বাঙালি জাতির স্বাধিকার আন্দোলনের অন্যতম প্রধান মাইলফলক ঊনসত্তরের ঐতিহাসিক গণ-অভ্যুত্থান দিবস আজ। মুক্তিকামী নিপীড়িত জনগণের পক্ষে জাতির মুক্তি