নিউজ ডেস্কঃ  পৃথিবীর বাইরে মনুষ্য অভিযান চালানোর ক্ষেত্রে প্রধান সংকট অক্সিজেন। এ জন্য ভবিষ্যৎ অভিযান সফল করতে আগে গন্তব্যস্থলে পানি খোঁজা হয়। তবে মঙ্গলে মহাকাশচারীদের অভিযান সহজ হবে বলে সুখবর পাওয়া গেছে! সেখানে অক্সিজেন তৈরি করা সম্ভব হয়েছে।
লাল গ্রহের পাতলা কার্বন ডাই-অক্সাইড পূর্ণ বায়ুমণ্ডল থেকে অক্সিজেন তৈরি করে ইতিহাসে আরও একটি নতুন রেকর্ড যোগ করেছে যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসার পারসিভিয়ারেন্স। রোভারটি সম্প্রতি মঙ্গলে হেলিকপ্টার ‘ইনজেনুইটি’ উড়িয়ে পৃথিবীর বাইরে প্রথম ফ্লাইট পরিচালনা করে। এবার এলো আরেক সাফল্য।

পারসিভিয়ারেন্সে আছে ছোট স্বর্ণের বাক্সের আকৃতির একটি যন্ত্র। এর নাম ‘মার্স অক্সিজেন ইন-সিটু রিসোর্স ইউটিলাইজেশন এক্সপেরিমেন্ট’ বা মোক্সি। এই যন্ত্র দিয়েই তৈরি করা হয়েছে অক্সিজেন। প্রাথমিকভাবে পাঁচ গ্রাম অক্সিজেন তৈরি করা হয়েছে।

মঙ্গলে একজন নভোচারীর ১০ মিনিট শ্বাস নিতে এই পরিমাণ অক্সিজেন দরকার হয়। মোক্সির সাহায্যে ঘণ্টায় ১০ গ্রাম অক্সিজেনও তৈরি করা সম্ভব। মঙ্গলের বাতাস ছেঁকেই তৈরি হবে এই অক্সিজেন। এতে রকেটের জ্বালানি নিয়েও আর মাথা ঘামাতে হবে না। ভবিষ্যতে লাল গ্রহে মানুষ পাঠানোর মিশনে অক্সিজেন তৈরির আরও উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন মোক্সি পাঠানোর চিন্তা করছে নাসা।
সূত্র :ডেইলি মেইল।